সর্বশেষ সংবাদ
Home / সারাদেশ / ঢাকা বিভাগ / তাবলীগ-জামাতের ভয়াবহ সংঘর্ষে নিহত এক, আহত শতাধিক

তাবলীগ-জামাতের ভয়াবহ সংঘর্ষে নিহত এক, আহত শতাধিক

গাজীপুরের টঙ্গীতে বিশ্ব ইজতেমা ময়দানে জোড় ইজতেমাকে কেন্দ্র করে তাবলিগ জামাতের দুই পক্ষের কয়েক হাজার মুসল্লির মধ্যে দফায় দফায় সংঘর্ষে শতাধিক ব্যক্তি আহত হয়েছেন। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে ইজতেমা ময়দানে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা মোতায়েন রয়েছে। মাওলানা সাদ কান্ধলভী ও মাওলানা জুবায়েরপন্থী তাবলিগ জামাতের মুসল্লিদের মধ্যে দফায় দফায় এ সংঘর্ষ শনিবার (১ ডিসেম্বর) ভোর সাড়ে ৫টা থেকে শুরু হয়। পরিস্থিতি এখন শান্ত রয়েছে।

টঙ্গী কামারপাড়া রোডের চা বিক্রেতা সোহাগ ও রাকিব জানান, জোবায়েরপন্থী মুসল্লিরা বুধবার (২৮ নভেম্বর) রাত থেকে ইজতেমা ময়দানের ভেতরে অবস্থান নেয়। তারা শুক্রবার (৩০ নভেম্বর) সকালে ইজতেমা ময়দানে ঢোকার সব গেট বন্ধ করে দেয়। বাইরের সাধারণ মুসল্লিদেরও ইজতেমা মাঠে জুমার নামাজ আদায় করতে দেওয়া হয়নি। তারা আরও জানান, শনিবার ভোরে ফজরের নামাজের আগে থেকে মাওলানা সাদপন্থী মুসল্লিরা ইজতেমা মাঠের চারদিকে টঙ্গী বাটাগেট ও কামাড়পাড়া রোডে তসবিহ ও কিতাব হাতে অবস্থান নেয়। পরে সকাল সাড়ে ১০টায় ইজতেমা মাঠের ভেতর থেকে সাদপন্থী মুসল্লিদের উদ্দেশে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে। পরে ওই ইটপাটকেলগুলো নিয়ে সাদপন্থী মুসল্লিরা পাল্টা জোবায়েরপন্থী মুসল্লিদের দিকে নিক্ষেপ করে। এতে উভয়পক্ষের প্রায় শতাধিক মুসল্লি মাথায় আঘাত পান।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক তাবলিগের শূরা সদস্য ও ভারতের সাদপন্থীর মুরুব্বিরা জানান, তারা প্রতি বছরের মতো এবারও বিশ্ব ইজতেমা শুরুর নির্ধারিত সময়ের আগে টঙ্গীর বিশ্ব ইজতেমা ময়দানে জোড় ইজতেমা অনুষ্ঠানের ঘোষণা দেন। সে অনুযায়ী ৩০ নভেম্বর থেকে ৪ ডিসেম্বর পর্যন্ত পাঁচ দিনব্যাপী জোড় ইজতেমা অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা। কিন্তু ৩০ নভেম্বর জোড় ইজতেমায় যোগ দিতে আসা কয়েক হাজার মুসল্লি ইজতেমা ময়দানে ঢুকতে গেলে দেওবন্দ কওমিপন্থী মাওলানা জোবায়েরের অনুসারী বিভিন্ন মাদ্রাসার ছাত্ররা তাদের বাধা দেন। গত কয়েক দিন ধরে কওমি মাদ্রাসা থেকে বিপুল সংখ্যক ছাত্র বিচ্ছিন্নভাবে ইজতেমা ময়দানে অবস্থান নেয়। তারা সাদপন্থীদের কৌশলে মাঠ থেকে সরানোর চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়।
আহত এক মুসল্লি

গত কয়েক দিন আগে থেকেই লাঠিসোঁটা নিয়ে কয়েক হাজার ছাত্র বিচ্ছিন্নভাবে ময়দানে ঢোকার ফটকগুলো বন্ধ করে সেখানে অবস্থান নেন। শুক্রবার জোড় ইজতেমায় যোগ দিতে আসা মুসুল্লিরা ময়দানে ঢুকতে না পেরে আশপাশের মসজিদে অবস্থান নেন। শনিবার (১ ডিসেম্বর) ভোরে আবারও তারা ময়দানে ঢুকতে গিয়ে জোবায়েরপন্থীদের বাধার মুখে পড়েন। এ নিয়ে ওই এলাকায় মুসল্লিদের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করছে।

অপরদিকে, প্রতিপক্ষের দেওবন্দ (জোবায়ের) কওমিপন্থী তাবলিগ মুরুব্বি মাওলানা শরীফুল ইসলাম জানান, ৭ ডিসেম্বর থেকে ১১ ডিসেম্বর তারা জোড় ইজতেমার ঘোষণা দেন। এ ঘোষণা শুনে সা’দপন্থীরা ৩০ নভেম্বর থেকে ৪ ডিসেম্বর পর্যন্ত পাঁচদিনব্যাপী জোড় ইজতেমা অনুষ্ঠানের ঘোষণা দেন। এ নিয়ে উভয়পক্ষ মুখোমুখি অবস্থান নিলে নিজ নিজ পক্ষের প্রতিনিধিদের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ডেকে নিয়ে নির্বাচনের আগে জোড় ইজতেমা স্থগিত রাখার অনুরোধ জানায়। সেখানে উভয়পক্ষই ওই সিদ্ধান্ত মেনে নেয়। তারপরও সা‘দপন্থী কয়েক হাজার তাবলিগ মুসল্লি শনিবার ভোরে জোড় ইজতেমা করার জন্য ময়দানে ঢোকার চেষ্টা করেন। এ নিয়ে এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে। যেকোনও সময় অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটে যেতে পারে। এ ব্যাপারে স্থানীয় প্রশাসনকে অবগত করা হয়েছে।

টঙ্গী পশ্চিম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এমদাদুল হক ঘটনার সত্যত্যা স্বীকার করে বলেন, এখন পর্যন্ত পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। ইজতেমা ময়দান এলাকায় পুলিশ র‌্যাবসহ পর্যাপ্ত আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য মোতায়েন রয়েছে। গাজীপুর মেট্রোপলিটন ট্রাফিক পুলিশের দক্ষিণ জোনের সিনিয়র সহকারী কমিশনার থোয়াই অংপ্রু মারমা বলেন, ‘ইজতেমা ময়দানের বাইরে কয়েক হাজার মুসল্লি ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে অবস্থান নেওয়ায় যানবাহন চলাচল বিঘ্নিত হচ্ছে। তবে মুসল্লিদের বুঝিয়ে পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে চেষ্টা চলছে।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

x

Check Also

বড় ভাইকে গলা কেটে খুন করে দা হাতে থানায়

আশুলিয়াা প্রতিনিধি : জমি নিয়ে বিরোধের জেরে ঢাকার আশুলিয়ায় ঘুমন্ত বড় ভাইকে ...

Shares