আলোচিত নুসরাত হত্যা মামলায় জেরা শেষ: বুধবার থেকে যুক্তিতর্ক

আলোচিত ফেনীর মাদরাসাছাত্রী নুসরাত জাহান রাফিকে আগুনে পুড়িয়ে হত্যা মামলায় সাক্ষীদের জেরা ও আসামি পরীক্ষা সম্পন্ন হয়েছে। বুধবার (১১ সেপ্টেম্বর) থেকে যুক্তিতর্ক শুরু হবে বলে জানান বিচারক।

জেলা জজ আদালতের সরকারি কৌঁসুলি হাফেজ আহাম্মদ বলেন, গত ২৭ জুন থেকে ফেনীর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক মামুনুর রশিদের আদালতে মামলার সাক্ষ্যগ্রহন শুরু হয়। এ পর্যন্ত ৯২ জন সাক্ষীর মধ্যে ৮৭ জনের সাক্ষ্য ও জেরা শেষ হয়েছে।

আদালত সূত্র জানায়, সোমবার সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত আদালতের কার্যক্রম চলে। ১৬ আসামি আদালতে হাজির ছিলেন। এদিন দুপুর থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত ৩৪২ ধারায় আসামি পরীক্ষার অংশ হিসেবে সকল আসামি তাদের নিজ নিজ আইনজীবীর মাধ্যমে বিচারকের কাছে লিখিত বক্তব্য পেশ করেন। তারা লিখিত বক্তব্যে নিজেদের নির্দোষ বলে দাবি করেন এবং মামলা থেকে অব্যাহতির আবেদন করেন।
এ সময় তাদের আইনজীবীরা বলেন, আসামিরা সাফাই সাক্ষী দিতে চান না। তাই আসামিদের লিখিত বক্তব্য আমলে নিয়ে তাদের খালাস প্রদানের আবেদন করছি।

এদিকে সোমবার আদালতের কার্যক্রম শুরুর পর মামলার বাদী নিহত নুসরাতের বড় ভাই মাহমুদুল হাসান নোমান ও মামলার তদন্ত কর্মকর্তা, ফেনীস্থ পিবিআইয়ের পরিদর্শক শাহ আলমকে আবারও জেরার জন্য আদালতে আনা হয়। এদিন তাদের সুনির্দিষ্ট কিছু বিষয়ে পুনরায় জেরা করেন আসামী পক্ষের আইনজীবীরা।

চলতি বছরের ২৭ মার্চ ফেনীর সোনাগাজী ইসলামিয়া ফাজিল মাদরাসার আলিম পরীক্ষার্থী নুসরাত জাহান রাফিকে যৌন নিপীড়ের দায়ে মাদরাসার অধ্যক্ষ সিরাজ উদ দৌলাকে গ্রেফতার করে পুলিশ। ৬ এপ্রিল ওই মাদরাসা কেন্দ্রের সাইক্লোন শেল্টারের ছাদে নিয়ে অধ্যক্ষের সহযোগীরা নুসরাতের শরীরে আগুন ধরিয়ে দেয়। ১০ এপ্রিল রাতে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে নুসরাত জাহান রাফি মারা যান।